IC38 Bengali Notes – 14

  • অতিরিক্ত সময় : “অতিরিক্ত সময় ” ধারা পলিসিগ্রাহকদের পরিশোধ্য প্রিমিয়াম পরিশোধ করার জন্য অতিরিক্ত সময়ের অনুদান দেয় I অতিরিক্ত সময়ের আদর্শ দৈর্ঘ্য হলো একমাস বা ৩১ দিন I
  • এটা ধরা হয় যে সময়ে প্রিমিয়াম দেওয়া হয়েছে যদি প্রিমিয়াম অতিরিক্ত সময়ের মধ্যে দেওয়া হয়ে থাকে I সেক্ষেত্রে কোনরূপ জরিমানা ধার্য করা হবে না I
  • অতিরিক্ত সময়ের দিন হিসেব করা হতে পারে প্রিমিয়াম দেয় তারিখের পরের দিন থেকে I

পলিসি তামাদি – বাস্তবচিত্র ১

নিম্নলিখিত দুটি পরিপেক্ষিতে বিমা পলিসি তামাদি হতে পারে :

পলিসি গ্রাহক দেয় তারিখ/অতিরিক্ত সময়ের মধ্যে প্রিমিয়াম না দিলে

একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর পলিসি গ্রাহক পলিসি না চালাতে চাইলে

রামস্বামী ২০০৯ সালে ১৫ বছরের জন্য ৫ লাখ টাকার জীবন বিমা কিনেছেন I সে তার সব প্রিমিয়াম দেয় সময়ের মধ্যে দিয়ে দিয়েছে I দুর্ভাগ্যবশত , ২০১৩ সালে প্রিমিয়াম দেওয়ার আগে হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে সে মারা গেল I তখন অতিরিক্ত সময়ের মধ্যে ছিল I এই পরিস্থিতিতে বাস্তবচিত্রটা কি হবে ? তার পরিবার কি তার মৃত্যুর সুবিধাটি পাবে ?

অতিরিক্ত সময়ের মধ্যে কোনো পলিসিকে তামাদি হিসেবে গন্য করা যায় না এবং অতিরিক্ত সময়ে প্রিমিয়াম দেওয়ার অর্থ দেয় সময়ে প্রিমিয়াম দেওয়া I

প্রিমিয়াম দিতে হয় পলিসিতে নির্দিষ্ট করা সময়ে I এই সময়টিকে বলা হয় “দেয় তারিখ ” I

যদি পলিসি গ্রাহক অতিরিক্ত সময়ের মধ্যে মারা যান , বিমাপ্রদেত্তা মৃত্যুকালীন সুবিধা বকেয়া প্রিমিয়াম বাদ দেবে এবং বাকি টাকা তার পরিবারকে দেয় I

রামস্বামী ২০০৯ সালে ১৫ বছরের জন্য ৫ লাখ টাকার জীবন বিমা কিনেছেন I সে তার আগের সব প্রিমিয়াম দেয় সময়ের মধ্যে দিয়ে দিয়েছে I দুর্ভাগ্যবশত , ২০১৩ সালে প্রিমিয়াম দেওয়ার আগে হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে সে মারা গেল I অতিরিক্ত সময় পার হয়ে যাওয়ার পরও প্রিমিয়াম প্রদান করেনি I বিমা কোম্পানি কি মৃত্যুকালীন সুবিধা দেবে ?

পলিসি তামাদি – বাস্তবচিত্র ২

এক্ষেত্রে পলিসি তামাদি হয়েছে বলে ধরা হয় I বিমা কোম্পানি কোনো দায়বদ্ধতার মধ্যে নেই যে রামস্বামির পরিবারকে মৃত্যু কালীন সুবিধা দেবে I যদি পলিসিটি অ-বাজেয়াপ্ত করণ অবস্থায় আসে তাহলেই শুধুমাত্র কিছু টাকা পাওয়া যাবে I

তামাদি – পুন:প্রবর্তন ও পুনর্বহাল

রাজ ৫ লাখের একটি পলিসি কিনলো I সে দুবছর নিয়মিত ভাবে প্রিমিয়াম দিল I সে তার মেয়ের বিয়ের জন্য উদগ্রীব থাকে তার প্রিমিয়াম দিতে ভুলে গেল I দীর্ঘ সময় পর সে অনুভব করে যে তার পলিসিটি তামাদি হয়ে আছে I যদি রাজ একটু সাবধানী হত তবে সে তার সুবিধাগুলি পুন:স্থাপন করতে পারত I

পলিসি গ্রাহক কি ইচ্ছাকৃত ভাবে পলিসি তামাদি করে ? বেশিরভাগ ক্ষেত্রে , তা নয় I নিচের দুটি কারণের যেকোনো একটি কারণে এটি হতে পারে :

পলিসি গ্রাহকের তরফে অবহেলা/অমনোযোগিতা

সাময়িক আর্থিক সমস্যা

যখন একটি পলিসি তামাদি হয় তখন বিমা কোম্পানি বা বিমা গ্রাহক কেউই সুবিধা পায় না I বিমাপ্রদেত্তা সব সম্ভাব্য পদক্ষেপ নেয় পলিসিটির অস্তিত্ব ফিরিয়ে আনার জন্য I এই পদ্ধতিকে বলে “পুনর্বহাল” , যা হলো তামাদির বিপরীত I পুনর্বহাল হলো নুতন পলিসির প্রস্তাবের মত গুরুত্বপূর্ণ I

সাধারণ ঝুঁকি নিরীক্ষার লৌকিকতা পুনর্বহালের সময়ের উপর নির্ভর করে যেমন :

পুনর্বহালের সময় ঝুঁকির অনুমান

ঝুঁকি হবে প্রকৃত বিমারাশি থেকে তামাদির তারিখে পরিশোধিত মূল্যের পার্থক্যএর সমান I

ঝুঁকি নির্ধারনকারীর বেছে নেওয়ার অধিকার আছে :

আসল পলিসির শর্ত অনুসারে পুনর্বহাল করা

পরিবর্তিত শর্ত অনুসারে পুনর্বহাল করা

পুনর্বহাল অগ্রাহ্য করা

পুনর্বহালের জন্য ধারাবাহিক সু-স্বাস্থ্যের প্রয়োজন I

পুনর্বহালের সময় নুতন পলিসি নিলে বেশি বয়সের জন্য উচ্চ প্রিমিয়াম হারের কারণে পুরানো পলিসি পুনর্বহাল করা বেশি সুবিধাজনক I

ধরনশর্তকি করা উচিত ?
সাধারণ পুনর্বহালকরা হয় যখন পলিসিটির স্বত্বত্যাগ মূল্য হয়বকেয়া প্রিমিয়াম ও সুদ দিতে হয় সু-স্বাস্থ্যের ঘোষণা জমা দিতে হয় বা বিমাযগ্যতার কিছু অন্যান্য নথি যেমন ডাক্তারি পরীক্ষা
বিশেষ পুনর্বহালযখন পলিসিটি তিন বছরের কম সময় চলেছে এবং পলিসিটির স্বত্বত্যাগ মূল্য হয় নি (অর্থাৎ সঞ্চিত জমা বা নগদ মূল্য অস্তিত্ব লাভ করেনি ) কিন্তু তামাদি অবস্থার মেয়াদ দীর্ঘ, বলা যেতে পারে প্রথম অদেয় প্রিমিয়াম থেকে এক বছর বা তার বেশি সময় পর পলিসি পুনর্বহাল করতে চাইলে Iএটি নুতন পলিসির মতই লেখা হয় , যার শুরুর তারিখ তামাদি পলিসির আসল শুরুর তারিখের দু-বছরের মধ্যে হয় I

মেয়াদপূর্তির তারিখ আসল মেয়াদকে অতিক্রম করবে না I

ঋণ তথা পুনর্বহালশুধুমাত্র সেই পলিসির জন্য যে তার পুনর্বহালের তারিখে পলিসিটির স্বত্বত্যাগ মূল্যের অধিকারী হয়েছে Iএটি পুনর্বহাল নয় কিন্তু দু-ধরনের লেনদেন জড়িত :

-এককালীন ঋণ দেওয়া ও

-পলিসির পুনর্বহাল

কিস্তি পুনর্বহালযখন পলিসি গ্রাহক বকেয়া থোক টাকা পরিশোধের অবস্থায় থাকে না এবং বিশেষ পুনর্বহাল স্কিমের অধীন পুনরুজ্জীবিতও করা যায় না I

এক্ষেত্রে প্রিমিয়ামের বকেয়া সাধারণ পুনর্বহাল স্কিমের অধীনে প্রচলিত  রীতিতে গণনা  করা হয় I

একটি শর্ত আরোপ করা যেতে পারে যে পুনর্বহালের সময় পলিসির উপর কোনো ঋণ বকেয়া নেই I

পরিশোধ পদ্ধতির (ত্রৈমাসিক বা অর্ধ-বার্ষিক ) উপর নির্ভর করে বিমাকৃতের একটি অর্ধ-বার্ষিক বা দুটি ত্রৈমাসিক প্রিমিয়াম পরিশোধ করা প্রয়োজন I

পরিশোধিত বকেয়া উদ্বৃত্ত টাকা তারপর ছড়িয়ে যায় , প্রিমিয়ামের নির্দিষ্ট তারিখে ভবিষ্যত প্রিমিয়াম পরিশোধের জন্য , দুই বা তার বেশি বছর সময়ে , বর্তমান পলিসি বার্ষিকী বা তারপরে দুটি নুতন পলিসি বার্ষিকী সময়ে I

 

অ-বাজেয়াপ্তকরণ শর্ত

পলিসি তামাদি হলে , বিমা গ্রাহকের বিভিন্ন পছন্দ আছে বিমা আইনে I এগুলিকে বলা হয়        অ-বাজেয়াপ্তকরণ শর্ত I

স্বত্বত্যাগ মূল্যের যোগ্যতা

পলিসি পরিশোধিত করা

স্বত্বত্যাগ মূল্য থেকে অগ্রিম প্রিমিয়ামের মাধ্যমে পলিসি চালু রাখা

স্বত্বত্যাগ মূল্য থেকে মেয়াদী বিমা সুরক্ষা নেওয়া

পছন্দগুলি হলো :

এইভাবে ভারতীয় আইন অনুসারে প্রিমিয়াম অন্তত: তিন বছর পরপর দেওয়া হলে একটি নিশ্চিত প্রত্যর্পণ মূল্য উপলব্ধ হবে I যদি পলিসি সমর্পণ না করা হয় তাহলে এটি একটি পরিশোধিত পলিসি হিসাবে চালু থাকবে I পলিসি শর্ত সাধারণত আইন অনুসারে নির্দেশিত মূল্যে অধিক উদার প্রত্যর্পণ মূল্য প্রদান করে I

প্রত্যর্পণ মূল্য

আমাদের বুঝতে হবে জীবন বিমায় কিভাবে প্রত্যর্পণ মূল্য নির্ণয় করা হয় I

  • জীবন বিমা প্রদেত্তা সাধারণত বিভিন্ন সময়ের সমর্পণ মূল্য কত হবে তার একটি তালিকা তৈরী করে থাকে I ওই তালিকায় প্রত্যর্পণ মূল্য নির্ণয়ের পদ্ধতিও দেওয়া থাকে I
  • এই পদ্ধতিটি বিমার ধরন ও প্রকল্প, পলিসির বয়স এবং কতদিন প্রিমিয়াম দেওয়া হয়েছে তার উপর নির্ভর করে থাকে I

কিছু সময় , সমর্পনে কেউ প্রকৃত যত টাকা হাতে পায় পলিসিতে বর্ণিত সমর্পণ মূল্যের থেকে আলাদা হয় I কেন ?

এর কারণ হলো , নিম্নলিখিত বিষয়গুলি সমর্পণ মূল্যের সাথে যুক্ত বা বিযুক্ত হতে পারে :

পরিশোধিত সংযুক্তি

বোনাস বা ডিভিডেন্ড সঞ্চয়

অগ্রিম প্রিমিয়াম প্রদান

প্রিমিয়ামের ফাঁক

পলিসি ঋণ

 

পলিসি গ্রাহক অবশেষে নিত সমর্পণ মূল্য পায় I সমর্পণ মূল্য হলো পরিশোধিত মূল্যের একটি শতকরা ভাগ I

দেয় প্রিমিয়ামের উপর শতকরা হিসেবে যে সমর্পণ মূল্য পাওয়া যায় তাকে বলে নিশ্চিত সমর্পণ মূল্য I

পলিসি ঋণ সাধারণত পলিসির সমর্পণ মূল্যের একটি শতকরা হিসেবে (যেমন ৯০ %) সিমিবদ্ধ থাকে I

বিমা প্রদেত্তা সাধারণত পলিসি ঋণের জন্য সুদ চান, যেটি অর্ধ-বার্ষিকী বা বার্ষিকীতে পরিশোধ যোগ্য I যদি সুদ না দেওয়া হয় তাহলে সেটি পলিসি ঋণের অংশ হবে এবং ঋণ অপরিশোধিতে অন্তর্গত হবে I

বিমা গ্রাহক পলিসি ঋণ নেওয়ার পর যদি ঋণের সুদ নদে এবং পরবর্তী প্রিমিয়ামও না দেন তাহলে কি হবে ?

এইরকম অবস্থায় , পলিসিটি তামাদি বলে গন্য হবে I যখন কোনো নুতন প্রিমিয়াম আসবে না তাহলে একটি পরিস্থিতির তৈরী হতে পারে যেখানে ঋণের অপরিশোধিত পরিমান এবং না দেওয়া সুদ ( মোট ঋণ ) পলিসির নগদ মূল্যের থেকে অনেক বেশি হয়ে যেতে পারে I

ঋণের অপরিশোধিত পরিমান এবং না দেওয়া সুদ পলিসির নগদ মূল্যের থেকে অনেক বেশি হয়ে গেলে বিমা প্রদেত্তা কি করবে ?

বিমা প্রদেত্তা বন্ধকী সম্পত্তির দখল গ্রহণ করবে I বিমা প্রদেত্তা বন্ধকী সম্পত্তির দখল গ্রহণ অবলম্বন গ্রহণ করার আগে পলিসি গ্রাহককে একটি নোটিশ পাঠাবে I পলিসিটি সমাপ্ত করা হবে এবং বেঁচে থাকা নগদ মূল্য ঋণ এবং অপরিশোধিত সুদের সঙ্গে স্বমন্বিত করা হবে I কোনো অতিরিক্ত থাকলে তা পলিসি গ্রাহককে পরিশোধ করা হবে I

মনোনয়ন : মনোনয়ন একটি প্রক্রিয়া যা দাবির নিষ্পত্তিকে সহজ করে I

এটা সেই জায়গা যেখানে জীবন বীমাকৃত একটি নাম প্রস্তাব করে যাকে বিমা কোম্পানি তার  মৃত্যুর পর আশ্বস্ত টাকা দেবে I

জীবন বীমাকৃত এক বা একাধিক ব্যক্তিকে নিযুক্ত ব্যক্তি হিসাবে মনোনীত করতে পারে I

যেখানে একের বেশি ব্যক্তি নিযুক্ত করা হয় সেখানে মৃত্যুকালীন দাবির টাকা তাদের যুগ্মভাবে অথবা জীবিত ব্যক্তি বা ব্যক্তিদের দেওয়া যেতে পারে I কোনো নির্দিষ্ট অংশে ভাগ করে দেওয়া হবে না I পলিসি শুরু হওয়ার পর নিযুক্ত ব্যক্তি মনোনয়ন করতে হলে বিমা প্রদেত্তাকে জানিয়ে তা কার্যকরী করতে হয় I

মনোনয়ন পলিসি কেনার সময় বা তার পরে করা যেতে পারে I

মনে রেখো : মনোনয়ন মনোনীতকে শুধুমাত্র বিমাকৃতের মৃত্যুর ঘটনার পর পলিসির টাকা গ্রহনের অধিকার দেয় I মনোনীত ব্যক্তির দাবির টাকার উপর সম্পূর্ণ (বা অংশিক ) কোনো অধিকার নেই I

 

যেখানে মনোনীত ব্যাকি নাবালক/নাবালিকা , সেখানে বিমাকৃতকে এই কাজে নিযুক্ত একজন ব্যক্তিকে নিয়োগ করা প্রয়োজন I নিযুক্ত ব্যক্তিকে কাজে নিযুক্ত ব্যক্তি হিসেবে তার সম্মতি প্রদর্শনে একটি পলিসি নথিতে সই করা প্রয়োজন I

মনোনীত ব্যক্তি সাবালক/সাবালিকা হলে নিযুক্ত ব্যক্তি তার পদমর্যাদা হারাবেন I বীমাকৃত যেকোনো সময় কাজে নিযুক্ত ব্যক্তির পরিবর্তন করতে পারেন I যদি কোনো ব্যক্তি কর্ম নিযুক্ত নাহয় এবং মনোনীত ব্যক্তি নাবালক/নাবালিকা হয় , তাহলে বিমাকৃতের মৃত্যুর পর মৃত্যুকালীন দাবি বিমাকৃতের আইনগত উত্তরাধিকারীদের দেওয়া হয় I

বিমা আইন , ১৯৩৮-এর ৩৮ নং ধারা অনুযায়ী বিমা পলিসির স্বত্বনিয়োগ

একটি বিমা পলিসি হলো একটি সম্পত্তি I এটি বিক্রি করা যেতে পারে , মর্টগেজ রাখা যেতে পারে , মাশুল বা পুরস্কার হিসেবে দেওয়া যেতে পারে I

বিমা আইনের ৩৮ নং ধারা অনুযায়ী ভারতে স্বত্ব নিয়ন্ত্রিত হয় .স্বত্বনিয়োগ সম্পাদনে স্বত্বনিয়োগী সম্পত্তি স্বত্বের সর্বপ্রকার স্বত্ব অধিকার এবং সুদের অধিকার পান এবং সেই পলিসির মালিক হয়ে যান I শর্ত সাপেক্ষে স্বত্বনিয়োগীর স্বত্বনিয়োগকারী থেকে ভাল অধিকার থাকে না I

শেষ শর্তটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ I এর সহজ অর্থ হলো যে স্বত্বনিয়োগী দাবিযোগ্য হবেন না যদি কোনো কারণে আশ্বস্ত প্রত্যাখ্যাত হয় I স্বত্বনিয়োগে প্রয়োজন হলো উভয়পক্ষের চুক্তি উপযুক্ত হতে হবেএবং আইনগত ভাবে অযোগ্যতার বিষয় হবে না I

পলিসিগ্রাহক হলো স্বত্বনিযগকারী এবং যাকে পলিসি স্বত্বনিয়োগ করা হয় সে হলো স্বত্বনিয়োগী I

স্বত্বনিয়োগের প্রকারভেদ

দু-রকমের স্বত্বনিয়োগ আছে

নি:শর্ত স্বত্বনিয়োগ

 

নি:শর্ত স্বত্বনিয়োগ স্বত্বনিয়োগকারীর সব রকম অধিকার , শিরোনাম এবং সুদ যা তার পলিসিতে ছিল তা স্বত্বনিযগির কাছে হস্তান্তরিত হয় সাবেক বা  কোনো ঘটনায় তার সম্পত্তির প্রত্যাবর্তন ছাড়াই I

এইভাবে পলিসি সম্পূর্ণভাবে স্বত্বনিযগির সঙ্গে ন্যস্ত করা হয় I পরবর্তীকালে স্বত্বনিয়োগকারীর অনুমতি ছাড়াই সে পলিসির সঙ্গে যা খুশি করতে পারে I

শর্তাধীন স্বত্বনিয়োগ

 

শর্তাধীন স্বত্বনিয়োগ পলিসির পূর্ণতার তারিখে বা স্বত্বনিযগির মৃত্যু হলে বিমাক্রিতের জীবদ্দশায় তার কাছে প্রত্যাবর্তন করবে সেটি আরোপ করে I

 

বৈধ্য স্বত্বনিয়োগের শর্তাবলী

১. সব ব্যক্তি যারা কাজটি সম্পন্ন করছে (কার্যনির্বাহী ) তাদের অবশ্যই অবাধ অধিকার এবং পদ মর্যাদা নিয়গিত পলিসির নিয়োগ যোগ্য আগ্রহ থাকতে হবে I

২. এটি প্রয়োজন যে স্বত্বনিয়োগ কার্য মূল্যবান বিবেচনা দ্বারা সমর্থিত হবে যেখানে প্রেম ও স্নেহ অন্তর্ভুক্ত হতে পারে I

৩. এটি আবশ্যক যে স্বত্বনিয়োগ কোনো আইন বিরোধী বলপ্রয়োগে করা হবে না I উদাহরণস্বরূপ অন্য দেশে বসবাসকারীকে পলিসি স্বত্বনিয়োগ বিনিময় নিয়ন্ত্রণ বিধান লঙ্ঘন করতে পারে I

৪. স্বত্বনিয়োগী আরেকটি স্বত্বনিয়োগ করতে পারবেন কিন্তু মনোনয়ন করতে পারবেন না , কারণ স্বত্বনিয়োগী বীমাকৃত নয় I

স্বত্বনিয়োগ অবশ্যই লিখিত হতে হবে এবং অন্তত একজন স্বাক্ষী দ্বারা হলফ করাতে হবে I

শিরোনাম হস্তান্তর আসলে পলিসির সত্যায়নের পৃষ্ঠাঙ্কন আকারে বিশেষভাবে ঘোষণা করা হয়েছে I এটাও প্রয়োজনীয় যে পলিসিগ্রাহককে অবশ্যই বিমাপ্রদেত্তাকে স্বত্বনিয়োগ সম্পর্কে নোটিস দিতে হবে I

বিমাপ্রদেত্তা এইধরনের লিখিত কোনো নোটিশ না পাওয়া পর্যন্ত স্বত্বনিয়োগির পলিসিতে কোনো অধিকার থাকবে না I

পলিসির পুন:স্বত্বনিয়োগ

পলিসি গ্রাহক / বিমাকৃতের অধিকার প্রতিস্থাপনের জন্য একজন স্বত্বনিয়োগী স্বত্বনিয়োগকারীকে পুনরায় পলিসি স্বত্বনিয়োগ করতে পারে I এইরূপ পুন:স্বত্বনিয়োগের ক্ষেত্রে , দাবি নিষ্পত্তির সুবিধার্থে পরে আবার আলাদা করে মনোনয়ন বা স্বত্বনিয়োগ করতে উপদেশ দেওয়া হয় I

আবার , শর্তাধীন স্বত্বনিয়োগের ক্ষেত্রে , স্বত্বনিয়োগীর মৃত্যু হলো পলিসির মালিকানা আবার বিমাকৃতের কাছে ফিরে আসে I অপরপক্ষে , স্বত্বনিয়োগ নি:শর্ত হলে , মালিকানা প্রয়াত স্বত্বনিয়োগীর সম্পত্তির সাথে যুক্ত হবে I

 

মূলগত পার্থক্যমনোনয়নস্বত্বনিয়োগ
মনোনয়ন বা স্বত্বনিয়োগ কি ?মৃত্যুর ক্ষেত্রে সুবিধা দাবি করার জন্য একজন ব্যক্তিকে নিয়োগ করা হলো মনোনয়ন Iঅন্য একজন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে অধিকার হস্তান্তর করা হলো স্বত্বনিয়োগ I
কখন মনোনয়ন বা স্বত্বনিয়োগ করা যাবে ?পলিসি প্রস্তাব বা আরম্ভও করার সময় মনোনয়ন করা যাবে Iস্বত্বনিয়োগ শুধুমাত্র পলিসি আরম্ভের পর করা যায় I
কে মনোনয়ন বা স্বত্বনিয়োগ করতে পারে ?মনোনয়ন শুধুমাত্র বীমাকৃত নিজের জীবনের পলিসিতে করতে পারে Iস্বত্বনিয়োগ পলিসির মালিকের দ্বারা হতে পারে , বীমাকৃত যদি যদি পলিসিগ্রাহক হন বা স্বত্বনিয়োগী দ্বারা I
এটি কোখায় প্রযোজ্য ?

 

এটি শুধুমাত্র যেখানে বিমা আইন, ১৯৩৮ প্রযোজ্য সেখানেই প্রযোজ্য হবে Iএটি সমগ্র বিশ্বে প্রযোজ্য , স্ব স্ব দেশের সম্পত্তি হস্তান্তর আইন অনুসারে I
পলিসিতে পলিসিগ্রাহকের নিয়ন্ত্রণ বজায় থাকবে কি ?পলিসিতে পলিসিগ্রাহকের অধিকার ও নিয়ন্ত্রণ বজায় থাকবে এবং মনোনিতের পলিসি অধীনে আবেদনের কোনো  অধিকার নেই Iপলিসিগ্রাহক পলিসির অধীনে তার অধিকারীর অধিকার , শিরোনাম এবং সুদ হারাবেন যতক্ষণ না পুন:স্বত্বনিয়োগ করা হচ্ছে এবং  স্বত্বনিয়োগীর পলিসি অধীনে আবেদনের কোনো অধিকার আছে I
সাক্ষী কি প্রয়োজন ?সাক্ষীর প্রয়োজন নেই Iসাক্ষী আবশ্যিক I
তারা কি  কোনো অধিকার  পাবে ?পলিসিতে মনোনিতের কোনো অধিকার নেই Iস্বত্বনিয়োগী পলিসিতে সম্পূর্ণ অধিকার পায় এবং পলিসির অধীনে আবেদন করতে পারে I
এটি কি প্রত্যাহার করা যায় ?

 

পলিসি মেয়াদের যেকোনো সময় মনোনয়ন প্রত্যাহার করা যায় Iএকবার স্বত্বনিয়োগ হয়ে গেলে তা আর প্রত্যাহার করা যায় না পুন:স্বত্বনিয়োগ করা যেতে পারে I

 

 

অপ্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে :মনোনীত অপ্রাপ্তবয়স্ক হলে একজন কর্মে নিযুক্ত ব্যক্তিকে নিযুক্ত করা হবে Iস্বত্বনিয়োগী অপ্রাপ্তবয়স্ক হলে একজন অবিভাবক নিযুক্ত করা হবে I
মনোনিতের বা স্বত্বনিয়োগীর মৃত্যুর ক্ষেত্রে কি হবে ?মনোনিতের মৃত্যুর ক্ষেত্রে পলিসির অধিকার পলিসিগ্রাহকের কাছে বা তার আইনত উত্তরাধিকারীর কাছে প্রত্যর্পণ হয় Iশর্তাধীন স্বত্বনিয়োগীর মৃত্যুর ক্ষেত্রে পলিসির অধিকার বিমাকৃতের কাছে প্রত্যর্পণ হবে , স্বত্বনিয়োগের শর্ত অনুযায়ী I নি:শর্ত স্বত্বনিয়োগীর মৃত্যুর ক্ষেত্রে তার আইনত উত্তরাধিকারীরা পলিসির অধিকার পাবে I
বিমাকৃতের মৃত্যু হলে এবং মৃত্যু দাবি পরিশোধের পূর্বে মনোনিতের বা স্বত্বনিয়োগীর মৃত্যু হলে কি হবে ?মৃত্যু দাবি নিষ্পত্তির পূর্বে মনোনিতের মৃত্যু হলে , মৃত্যু দাবি বিমাকৃতের আইনত উত্তরাধিকারীদের পরিশোধ করা হবে Iমৃত্যু দাবি নিষ্পত্তির পূর্বে স্বত্বনিয়োগীর মৃত্যু হলে , পলিসির টাকা স্বত্বনিয়োগীর আইনত উত্তরাধিকারীরা পাবে এবং বীমাকৃত যিনি স্বত্বনিয়োগকারী তিনি নন I
ঋণদাতাদের পলিসিতে সংযুক্ত করতে পারেন কি ?ঋণদাতাদের পলিসিতে সংযুক্ত করা যাবে যাদের এতে মনোনয়ন আছে Iঋণদাতাদের পলিসিতে জোড়া যাবে না যদি না স্বত্বনিয়োগ ঋণদাতাদের প্রতারণা করা হয়েছে দেখানো হয় I

 

পরিবর্তন

উদাহরণ ১ :

আমি একটি ১০ লাখ টাকার জীবন বিমা নিয়েছি I আমি ত্রৈমাসিক প্রিমিয়াম প্রদান করি I এখন , আমি এটি বার্ষিক প্রিমিয়ামের পলিসিতে পরিবর্তন করতে চাই I এটা কি সম্ভব ?

উদাহরণ ২ :

আমি একটি ৫ লাখ টাকা বিমারাশির জীবন বিমা নিয়েছি I এখন আমি বিমারাশি বাড়িয়ে ১০ লাখ করতে চাই I এটি কি সম্ভব ?

বিমাপ্রদেত্তা পলিসি প্রদানের পর পলিসিতে পরিবর্তনের অনুমতি দেয় I

সাধারণত পলিসির প্রথম বছরে পরিবর্তনের অনুমতি নেই I যাইহোক কিছু ব্যতিক্রম আছে I পরিবর্তনের অনুমতি দেওয়া হয় প্রিমিয়াম দেওয়ার ধরনের পরিবর্তন করতে চাইলে বা যে পরিবর্তনগুলি প্রকৃতিতে অপরিহার্য সেগুলির ক্ষেত্রে  – যেমন ,

  • নামবা /ঠিকানারপরিবর্তন ,
  • বয়সবেশিবাকমপ্রমানিতহলেবয়সেরপুন:প্রবেশ ,
  • দুর্ঘটনাজনিতসুবিধাবাস্থায়ীঅক্ষমতাইত্যাদিরক্ষেত্রেসুবিধাঅনুদানেরজন্যঅনুরোধ I

পরিবর্তনের প্রভাব

ঝুঁকি নিরীক্ষকের অনুমোদন ছাড়া পরিবর্তন করা যায় না কারণ কিছু পরিবর্তন ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে I

বিমারাশির পরিবর্তন , বৃদ্ধির দিকে , ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে I সেক্ষেত্রে ঝুঁকি নির্ধারণকারী পুনরায়: ঝুঁকি নিরীক্ষা করবে I

পরিবর্তন বিমাপ্রদেত্তার উপর দুরকম প্রভাব ফেলে I

যে পরিবর্তনগুলি ঝুঁকিকে প্রভাবিত করে নাঠিকানার পরিবর্তন

প্রিমিয়াম প্রদানের ধরনের পরিবর্তন

মনোনয়নের পরিবর্তন

মুনাফা বিহীন পলিসিকে মুনাফাযুক্ত পলিসিতে পরিবর্তন বা তার বিপরীত পরিবর্তন

একটি পলিসিকে দুই বা তার বেশি ক্ষুদ্র বিমারাশির পলিসিতে পরিবর্তন

যে পরিবর্তনগুলি ঝুঁকিকে প্রভাবিত করে

 

প্রকল্পের পরিবর্তন

পলিসির শর্তের পরিবর্তন

বিমারাশির পরিবর্তন